অর্থনীতি

Best Investment Plan – এই মুহুর্তে ব্যাংক না পোষ্ট অফিস, কোথায় টাকা রাখা বেশি লাভ ও নিরাপদ, এই হিসেব দেখে সিদ্ধান্ত নিন।

Adv

সুন্দরভাবে জীবনযাপন করার স্বপ্ন সকলেই দেখে থাকেন। আর তার জন্য দরকার Best Investment Plan. এই নিশ্চিন্ত জীবন যাপনের উদ্দেশ্যে ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয়ও করে থাকেন। সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে Bank Vs Post Office কোন স্কিম ভালো। অর্থাৎ বিনিয়োগের উপর ভালো রিটার্ন পাওয়া যাবে তা জানেন কি? নতুন বছরে কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ হয়েছে ফেব্রুয়ারি মাসে। চলতি মাসে Bank Vs Post Office বিভিন্ন স্কিমে বেড়েছে সুদের হার। তার মধ্যেও কোন স্কিমে সঞ্চয় Best Investment Plan জেনে নেওয়া যাক।

Bank Vs Post Office Best Investment Plan

১) SBI এর ফিক্সড ডিপোজিট স্কিম- RBI এর পরে যেই ব্যাংকের স্থান, তা হল SBI বা স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া। বর্তমানে এই ব্যাংকে একাউন্ট হোল্ডারের সংখ্যাও কম নয়। SBI তে ১০ বছরের বিনিয়োগে FD করেন, পাবেন ৬.৮% হারে সুদ। এক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিমাণ ২ কোটির কম হতে হবে। ধরা যাক ব্যক্তি ১ লাখ টাকার ১০ বছরের জন্য FD করেন, মেয়াদ শেষে রিটার্ন পাবেন ১,৯০,৫৫৫ টাকা । অর্থাৎ ফিক্সড ডিপোজিটে পাওয়া যাবে ৯০,৫৫৫ টাকা সুদ। ১ লাখ টাকা বিনিয়োগে মেয়াদ শেষে মিলবে প্রায় ডবল রিটার্ন।

Ad

২) POMIS- পোস্ট অফিসের মান্থলি ইনকাম স্কিম সম্পর্কে অনেকেই শুনেছেন। সঞ্চয়ের আর এক নাম হল এই স্কিম। বর্তমানে এই স্কিমে টাকা সঞ্চয় করলে পাওয়া যাবে ৭.৪% সুদ (এপ্রিল-জুন, ২০২৩)। কোনো ব্যক্তি ১,০০০ টাকা থেকে বিনিয়োগ করতে পারেন। সঞ্চয়ের মেয়াদ ৫ বছর। ব্যক্তি যদি ২ লাখ টাকা ৫ বছরের জন্য সঞ্চয় করেন, তাহলে মেয়াদ শেষে পাবেন অতিরিক্ত ৭৪,০০০ টাকা।

বাম্পার স্কীম, প্রতিমাসে অল্প অল্প করে জমান, স্টেট ব্যাংক সারাজীবন দেবে সংসারের সমস্ত খরচ।

৩) KVP বা কিষান বিকাশ পত্র- পোস্ট অফিসের একটি জনপ্রিয় স্কিম এবং Best Investment Plan হল এটি। MIS স্কিমের মতো এই স্কিমের সুদের হারও ৩ মাস অন্তর অন্তর পরিবর্তন হয়। এই স্কিমে বর্তমানে বিনিয়োগ করলে পাওয়া যাবে ৭.২% সুদ। এতে কোনো ব্যক্তি ১,০০০ টাকা থেকে বিনিয়োগ করতে পারেন এবং সর্বোচ্চ বিনিয়োগের কোনো সীমা নেই। যদি কোনো ব্যক্তি ১ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন, ১০ বছর পর ২ লাখ টাকা রিটার্ন পাবেন। অর্থাৎ বিনিয়োগের ডবল রিটার্ন পাওয়া যাবে। তবে এতে 80C ধারায় কর ছাড় পাওয়া যায় না। এছাড়া মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে টাকা তোলা হলে TDS কাটা হয়।

৪) পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক- SBI এর পাশাপাশি এই ব্যাংকে একাউন্ট হোল্ডারের সংখ্যাও নেহাতই কম নয়। এই ব্যাংকে বিনিয়োগ করলে ১০ বছরের মেয়াদে পাওয়া যাবে ৬.৫% সুদ। তবে হ্যাঁ ২ কোটি টাকার কম বিনিয়োগের ক্ষেত্রেই এই সুদের হার মিলবে। SBI এর মতো ১০ বছরের জন্য ১ লাখ বিনিয়োগে মেয়াদ শেষে পাওয়া যাবে ১,৯০,৫৫৫ টাকা রিটার্ন। অর্থাৎ মেয়াদ শেষে ৯০,৫৫৫ টাকা সুদ পাবেন। যেই অঙ্ক প্রায় ২ লাখ টাকার কাছাকাছি। বিনিয়োগের ডবল টাকা রিটার্ন, এর থেকে লাভের আর কি আছে। ব্যাংক হোক আর পোষ্ট অফিস Best Investment Plan কে বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

৫) HDFC Bank- এই ব্যাংকে ২ কোটি টাকার কমে, ১০ বছরের বিনিয়োগে পাওয়া যাবে আরো বেশি সুদের হার। অর্থাৎ ৭% সুদ। যদি ব্যক্তি ১০ বছরের জন্য ১ লাখ বিনিয়োগ করেন, মেয়াদ শেষে পাবেন ২,০০,১৬০ টাকা রিটার্ন। অর্থাৎ ১০ বছরের মেয়াদ শেষে পাবেন ১,০০,১৬০ টাকা সুদ। বিনিয়োগের দ্বিগুনেরও অধিক টাকা ফেরত পাবেন।

 রাজ্য সরকারের বিশেষ উদ্যোগ সকল চাকরিপ্রার্থীরা পাবে 1 লক্ষ টাকা, এই সরকারি প্রকল্পে আবেদনের মাধ্যমে।

নতুন বছরের ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে এর থেকে ভালো আর কি হতে পারে? আজই পরিকল্পনা করুন, আরো বিশদে জানতে হলে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক বা নিকটবর্তী পোস্ট অফিসে গিয়ে আধিকারিকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। Bank Vs Post Office কোথায় বিনিয়োগ করবেন ভেবে নিন। Best Investment Plan সংক্রান্ত খবরের নতুন আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(102) ""