ব্যাবসা

ফ্লিপকার্টে তৈরি করুন সেলার অ্যাকাউন্ট। আপনার ছোট্ট ব্যবসাকে ছড়িয়ে দিন দেশব্যাপী

Adv

আমরা যারা ছোটোখাটো ব্যবসা করি তাদের কাছে প্রথম সবচেয়ে বড়ো সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় সেল। অর্থাৎ আমরা প্রোডাক্ট তো তৈরি করে ফেলি কিন্তু সঠিক ভাবে সেল করতে পারি না। সে কম্পিটিশনের জন্যই হোক কিংবা অন্য কারনে।

আমাদের সবচেয়ে বড়ো যে সমস্যার মুখে পড়তে হয় সেটা হলো সঠিক মানুষ। অর্থাৎ আমরা যে জিনিসটি তৈরি করছি সেটা ঠিক যেই মানুষটির দরকার সেই মানুষটির হাতের কাছে আমরা পৌঁছে দিতে পারছি না, যার ফলে আমাদের ব্যাবসা বাড়তে পারে না।

Ad

আজ আমি আপনাদের সঙ্গে এমন একটি পদ্ধতি শেয়ার করবো যার মধ্যে দিয়ে আপনি খুব সহজে সেই সমস্ত মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে পারবেন যাদের আপনার প্রোডাক্টটি প্রয়োজন। ফ্লিপকার্টের নাম আমরা সকলেই শুনেছি। এমনকি আমরা বেশিরভাগ লোক ফ্লিপকার্টের মাধ্যমে নিজের প্রয়োজনীয় জিনিস কিনি। কিন্তু আপনি কি জানেন ফিল্পকার্ট নিজে কোনো জিনিস তৈরি করে না। সে আমার আপনার মতো ছোটো-বড়ো ব্যাবসায়ীর তৈরি করা প্রোডাক্টগুলোকে নিজের সাইটে বিক্রির মধ্যে দিয়ে আয় করে।

অর্থাৎ কোনো এক তাঁতি রাজস্থানে বসে একটি শাড়ি তৈরী করলো, এবং সেটি ফ্লিপকার্টে ছেড়ে দিলো। আমি পশ্চিমবঙ্গে বসে সেই শাড়িটি ফ্লিপকার্টে দেখে অর্ডার করলাম এবং খুব কম সময়ের মধ্যে সেই শাড়িটি আমার কাছে চলে এলো। এখানে তাঁতিটি নিজে এসে আমাকে শাড়িটি দিয়ে গেলো না, সে ফ্লিপকার্টের মাধ্যমে শাড়িটি আমাদের কাছে পৌঁছে দিলো।

ঠিক একইভাবে আপনিও আপনার ব্যাবসাকে ফ্লিপকার্ট নিয়ে যেতে পারেন খুব সহজে। যার মধ্যে দিয়ে আপনি আপনার ব্যবসাকে গোটা ভারতে ছড়িয়ে দিতে পারেন। কিকরে করবেন সেই নিয়েই আলোচনা করতে চলেছি। এরজন্য আপনাকে ফ্লিপকার্ট একটি সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। এরজন্য আপনার প্রয়োজন পরবে একটি GST নাম্বার।

আপনার নামের সিমকার্ড অন্য কেউ ব্যবহার করছে না তো! এই পদ্ধতিতে জেনে নিন

আপনি দুটি পদ্ধতিতে ফ্লিপকার্ট সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারেন। প্রথমটি হলো ওয়েবসাইট থেকে অপরটি হলো অ্যাপের মাধ্যমে। প্লে স্টোরে আপনি Flipkart Seller Hub নামে একটি অ্যাপ পেয়ে যাবেন, যেটির মাধ্যমে আপনি খুব সহজে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদন করতে গেলে প্রথমেই আপনার কাছে মোবাইল নাম্বার চাওয়া হবে এরপর আপনার কাছে কিছু তথ্য চাওয়া হবে আপনার ব্যবসার ব্যাপারে এবং তারপর আপনার কাছে আপনার GST নাম্বার চাওয়া হবে এবং সবশেষে আপনার ব্যাঙ্ক ডিটেইলস। এই তথ্য গুলো সঠিক ভাবে পূরন করলেই আপনার সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।

এরপর আপনার কাজ হবে আপনার প্রোডাক্ট লিস্ট করা। আপনি কোন কোন প্রোডাক্ট বিক্রি করতে চান, কতো টাকা দিয়ে বিক্রি করতে চান এইসমস্ত। ফ্লিপকার্ট আপনার কাছ থেকে আপনার প্রতি জিনিস বিক্রির বদলে কমিশন কাটবে আপনি সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে যাবার সময় একটি চার্টে সমস্ত রেট দেখে নিতে পারবেন।

সমস্ত কিছু হয়ে গেলে ফ্লিপকার্ট নিজে আপনার বাড়ি থেকে অর্ডারের প্রোডাক্ট সংগ্রহ করে সেইসমস্ত মানুষের কাছে পৌঁছে দেবে যারা আপনার প্রোডাক্ট ফ্লিপকার্ট অ্যাপের মাধ্যমে অর্ডার করেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(90) ""