ব্যাবসা

Low Investment Business Ideas – বেকার ছেলেমেয়েদের জন্য চমৎকার 2টি স্বল্প পুঁজির ব্যবসার আইডিয়া, নিজের পায়ে দাড়ানোর সুযোগ।

Adv

স্বল্প পুঁজির ব্যবসা বা Low Investment Business Ideas এর মাধ্যমে নিজের পায়ে দাড়ানোর সুযোগ। যুবক যুবতিরা বেকার বসে না থেকে, এই ব্যবসাগুলি শুরু করে প্রচুর আয় করুন। কিভাবে শুরু করবেন, দেখে নিন বিশদে।
বর্তমানে অনেকে শখে অনেকে বহু চেষ্টা করেও চাকরি খুঁজে না পেয়ে নিজের ব্যবসা শুরু করতে চান। কিন্তু ব্যবসা করবার প্রধান ও অন্যতম একটি চিন্তা হল পুঁজির সংস্থান। কোনো ব্যবসায় কত পুঁজি লাগতে পারে, সেই সম্বন্ধে সঠিক ধারণা তৈরী হবার আগেই অনেকে পিছিয়ে আসেন।

কিন্তু ব্যবসা শুরু করার বাস্তব চিত্রটা একেবারেই অন্যরকম। এমন অনেক ব্যবসা আছে, যেগুলো শুরু করতে গেলে খুব সামান্য পুঁজি লাগে, অথচ ব্যবসা দাঁড়িয়ে গেলে তা থেকে কয়েক হাজার থেকে লক্ষাধিক টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। এই প্রতিবেদনে তেমনই দুটি ব্যবসার ধারণা দেওয়া হয়েছে, যেখানে স্বল্প বিনিয়োগে আপনি ব্যবসা শুরু করতে পারবেন এবং তা থেকে পরবর্তীতে মোটা টাকা আয় করতে পারবেন।

Ad

Low Investment Business Ideas বা স্বল্প পুঁজির ব্যবসা ১

ধূপকাঠির ব্যবসা

ধূপকাঠির ব্যবসা Low Investment Business Ideas বা খুব অল্প পুঁজিতেই শুরু করা সম্ভব। এই ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রথমেই আপনাকে কাঁচামাল কিনতে হবে। ধূপকাঠি তৈরিতে মূলত কাঠ-কয়লার গুঁড়ো, চন্দন গুড়ো , বাশের লাঠি, পারফিউম, কাগজের বাক্স, ধুপকাঠি মোড়ানোর কাগজ, কুপাম ডাস্ট, হোয়াইট চিপস পাউডার, জিগাত পাউডার এগুলো লাগে। এই উপকরণগুলির দাম বেশ কম। এগুলো আপনি অনলাইনে বা যে কোনো বড়ো হোলসেল মার্কেটে পেয়ে যাবেন।

কাঁচামালের বন্দোবস্ত হয়ে যাবার পরে আপনাকে ধূপকাঠি বানানো শিখতে হবে। এর জন্য ইউটিউবে অসংখ্য টিউটোরিয়াল আছে। তাই আপনি খুব সহজেই এই সব ভিডিও দেখে শিখে যেতে পারবেন কীভাবে ধূপকাঠি বানানো হয়।
ধূপকাঠি বানানোর জন্য মূলত চার ধরণের মেশিনের প্রয়োজন পড়ে।

(1) ধূপকাঠির তৈরির জন্য মসলা মিক্স করার মেশিন,
(2) ধুপকাঠি তৈরির মেশিন,
(3) ধুপকাঠি শুকানোর মেশিন,
এবং
(4) ধুপকাঠির প্যাকিং মেশিন।

এই মেশিনগুলির সাহায্যে আপনি খুব কম সময়েই অনেক বেশি পরিমাণ ধূপকাঠি বানাতে পারবেন। কিন্তু, এই মেশিনগুলি বেশ দামি। তাই, আপনার পুঁজি স্বল্প হলে প্রথমেই মেশিন কেনার দরকার নেই। আগে ভিডিও দেখে ধূপকাঠি বানিয়ে, তা ফ্যানের হাওয়াতে শুকিয়ে প্যাকেট করে বিক্রি করা শুরু করুন। আস্তে আস্তে যখন ব্যবসা বাড়বে, তখন প্রয়োজন মত মেশিন কিনে নেবেন।
ব্যবসা বাড়ার সাথে সাথে চাহিদাও বাড়বে। তাই রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে ব্যবসার। এর ফলে আইনি সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে।

স্বল্প পুঁজির ব্যবসা ২ – মুরগি পালনের ব্যবসা

এই ব্যবসা শুরু করতেও বেশি পুঁজির (Low Investment Business Ideas) প্রয়োজন পড়ে না। আপনার বাড়িতে কিছুটা বাড়তি জায়গা থাকলে, সেখানেই মুরগি পুষে তার ব্যবসা করা সম্ভব।
এই ব্যবসা শুরুর জন্য প্রথমেই আপনাকে কোন জাতের মুরগি পালন করবেন, তা ঠিক করে নিতে হবে। আমাদের রাজ্যে রোড আইল্যান্ড রেড বা ব্ল্যাক অস্ট্রালর্প এই দুই জাতের মুরগি বেশ জনপ্রিয়। তাই আপনি চাইলে এই জাতের মুরগি পালন করতে পারেন। শুরুর দিকে যদি ৪০০ থেকে ৬০০ গ্রামের মুরগি থাকে, বড়ো হয়ে সেগুলি ২ কেজির কাছাকাছি হয়ে যাবে।

1 এপ্রিল থেকে রাজ্যেজুড়ে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প, আপনার এলাকায় কোন দিন হচ্ছে?

মুরগি চাষের জন্য আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল খাবার। ফেলে দেওয়া ভাত বা বাসি রুটি, শাক সবজির খোসা, লতাপাতা সবই খায় মুরগি। তবে এদের বৃদ্ধির হার বাড়াতে চাইলে মাঝেমধ্যে চালের গুঁড়ো, গম ভাঙ্গা, খুদ, সর্ষের খোল ইত্যাদি খাওয়াতে হবে। এই সব খাবারের দাম বেশ কম, তাই আপনার পকেটে চাপ (Low Investment Business Ideas) পড়বে না। সুতরাং একটু প্লানিং করে সহজেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

বহুদিন পর রাজ‍্য বিদ্যুৎ সংস্থায় প্রচুর কর্মী নিয়োগ, ঝটপট সরকারি চাকরি।

এরপরে আসে পরিচর্যার বিষয়টি। বিশেষ কোনো পরিচ র্যার প্রয়োজন এক্ষেত্রে পড়ে না। কেবল খেয়াল রাখবেন, মুরগির মল যাতে ওদের থাকার জায়গায় লেপটে না যায়, এর জন্য মুরগির ঘরে তুষের পুরু স্তর বানিয়ে রাখতে হবে। পাশাপাশি মাসে দুদিন মুরগির ঘর পরিষ্কার করতে হবে।
মুরগির ব্যবসা শুরু করলে ওদের স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখতে হবে। রোগ হবে টীকাকরণ আবশ্যক।
মুরগির ব্যবসায় প্রচুর লাভ করা যায়। কারণ এখানে আপনি ডিম এবং মাংস দুটোই বিক্রি করতে পারবেন। পাশাপাশি, আপনি যদি মোরগ এবং মুরগি দুটোই পালন করেন, তাহলে প্রজননের ফলে জন্মানো বাচ্চা মুরগি বিক্রি করেও আপনি আয় করতে পারবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(104) ""