প্রকল্প

Krishak Bandhu – এই ফর্ম জমা করলে, পশ্চিমবঙ্গের সকল কৃষকদের একাউন্টে টাকা ঢুকবে।

Adv

আপনি কি একজন কৃষক? আপনি কি পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা? আপনি কি কৃষক বন্ধু প্রকল্পে (Krishak Bandhu) নাম নথিভুক্ত করেছেন? যদি করে থাকেন তাহলে তাহলে আজকের এই প্রতিবেদন আপনাদের জন্য। রাজ্য সরকার কৃষক বন্ধু আওতায় থাকা কৃষকদের জন্য বড় ঘোষনা করল। এই কৃষক বন্ধু প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের কৃষকদের (Indian Farmers) প্রতি মাসে 8 হাজার থেকে 10 হাজার টাকা ভাতা দেওয়া হয়।

West Bengal Krishak Bandhu Scheme Payment Update.

এবার কৃষক বন্ধু প্রকল্পের (Krishak Bandhu) আওতায় থাকা কৃষকদের অতিরিক্ত পেনশন দেবে রাজ্য সরকার। রাজ্যের কৃষক বন্ধুদের জন্য নতুন পেনশন স্কীম (Pension Scheme) আনল রাজ্য সরকার। যেমন রাজ্যের নাগরিকরা বার্ধক্য ভাতা (Old Age Pension) পান তেমনই একটি স্কীম এটি যা শুধুমাত্র কৃষকদের (Farmers) জন্যে। এই স্কীমের মাধ্যমে 60 বছর বয়স পার হলে তাদেরকে প্রতিমাসে 1000 টাকা করে পেনশন দেবে সরকার।

সাধারন শ্রেনী, তপশিলি জাতি উপজাতি শ্রেণী এবং আর্থিকভাবে অনগ্রসর শ্রেণীর লোকেরা সবাই এই Krishak Bandhu প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। আর আগামী লোকসভা ভোটের আগে কেন্দ্র সরকার থেকে শুরু করে রাজ্য সরকার সকলেই কৃষকদের জন্য অনেক ধরণের ঘোষণা করছে। এরই মধ্যে Krishak Bandhu নিয়েও পিছিয়ে না থেকে বড় ঘোষণা করলো পশ্চিমবঙ্গ সরকার (Government Of West Bengal).

Krishak Bandhu Scheme Apply Criteria

1) কৃষকদের অবশ্যই 2024 এর 1লা জানুয়ারি অনুযায়ী সর্বোচ্চ 60 বছর বয়সের মধ্যে থাকতে হবে। শারীরিকভাবে অক্ষম থাকলে 55 বছর পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।
2) অন্তত 10 বছর যাবত রাজ্যের একজন স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
3) প্রাথীর নিজের নামে 1 একরের বেশি জমি থাকতে হবে।

4) প্রার্থী যদি বর্গাদার হন তবে জমির সর্বোচ্চ পরিমাণ হতে হবে 2 একরের মধ্যে।
5) কোনো নিকট আত্মীয় নেই বা তেমন কেউ দেখভাল করার নেই, এমন কৃষকরা এর সুবিধা পাবেন।
6) যারা এই Krishak Bandhu প্রকল্পের জন্য আবেদন করবেন তারা অন্য কোন সরকারি স্কীমের সুবিধা পেলে চলবেনা।

Krishak Bandhu Scheme Apply Process

1) প্রথমে স্থানীয় ব্লকের সহ কৃষি অধিকর্তা অথবা মহকুমা সহ কিছু অধিকত্তা অথবা জেলার সহ কৃষি অধিকর্তা এই অফিস থেকে কৃষক বন্ধু পেনশন স্কিমের একটি ফর্ম নিন।
2) তারপরে ফর্মটিতে যা যা চাইবে সেই সব তথ্য দিয়ে সঠিক ভাবে পুরন করুন।
3) এরপর সেই ফর্মটিতে কয়েকটি সই করাতে হবে।

4) গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের সই, ভূমি দপ্তরের রেভিনিউ অফিসারের সই, ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক মহাশয়ের সই এবং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির সই লাগবে।
5) সেই ফর্মটিতে নিজের কয়েকটি পাসপোর্ট সাইজ ছবি লাগাতে হবে আর আবেদনকারীকে সই করতে হবে।
6) তারপরে প্রয়োজনীয় সব নথি এ কপি করে জেরক্স করে ফর্ম এর সাথে সংযুক্ত করে অফিসে জমা করে দিতে হবে।

Mahila Samman Yojana (মহিলা সম্মান যোজনা ২০২৪)

Krishak Bandhu Apply Documents

1) এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
2) আধার কার্ড (Aadhaar Card).
3) ভোটার কার্ড (Voter ID Card).
4) শারীরিকভাবে অক্ষম হলে তার প্রমাণ

দরকার হলেই 5 মিনিটে টাকা পাবেন। আধার কার্ড ব্যাংক একাউন্ট লিংক থাকলেই হবে।

5) কাস্ট সার্টিফিকেট (Caste Certificate).
6) জমির তথ্যের প্রমাণ।
7) ব্যাংকের পাস বইয়ের প্রথম পাতার জেরক্স। এছাড়া দরকার হলে আরও কোন নথি চাওয়া হতে পারে Krishak Bandhu প্রকল্পে আবেদন করার জন্য।
Written by Ananya Chakraborty.

 বেকার ছেলে মেয়েদের 5 লাখ টাকা দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এইভাবে আবেদন করলে ভোটের আগে টাকা পাবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(105) ""