প্রকল্প

লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পাবেন না, এই কাজ না করলে। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কাটছে কেন?

Adv

২০২১ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে রাজ্যের আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া পরিবারের মহিলাদের জন্য চালু করা হয়েছিল লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প (Lakshmir Bhandar Scheme). বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের লক্ষ লক্ষ মহিলারা এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়ে চলেছেন। এই প্রকল্পে আবেদনের মাধ্যমে আবেদনকারীরা বছরে ৬,০০০ টাকা থেকে ১২,০০০ টাকা আর্থিক সাহায্য পাচ্ছেন। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের অনুপ্রেরণায় এবং তত্বাবধানে বেশ কয়েকটি জনকল্যানমুখী প্রকল্পও চালু করা হয়েছে। কিন্তু সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর, লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের সুবিধা গ্রহনকারী অনেকের ব্যাংক একাউন্ট থেকে কাটা হচ্ছে নির্দিষ্ট পরিমান টাকা।

লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প কত টাকা কাটা হবে?

কেন এই কাজ করা হচ্ছে? কোন নিয়ম মানলে এই কাজ আটকানো যাবে? এছাড়া অনেক উপভোক্তার অভিযোগ এতদিন পর্যন্ত লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পেলেও চলতি মাস থেকে হঠাৎ টাকা পাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে। কেন এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে? প্রথমেই জানিয়ে রাখি, গৃহবধূ বা রোজগারহীন মহিলাদের আর্থিক সহায়তা করতে রাজ্য সরকারের তরফে এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

Ad

যদিও এমন অনেকে এখনও পর্যন্ত এই প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন, যারা নিয়মের আওতাধীন নন। সেই সকল উপভোক্তাদের চিহ্নিত করতে লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের নতুন নিয়ম জারি করা হয়েছে। চলতি মাস থেকে লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পেতে হলে মানতে হবে নির্দিষ্ট নিয়ম। প্রকল্পে আবেদনের ক্ষেত্রে কোনো নথিপত্র বা ডকুমেন্টস না থাকলে পাওয়া যাবে না টাকা।

কোন কোন নথিপত্র থাকতে হবে-
১) আবেদনকারী মহিলার নামে পরিবারের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড,
২) সিঙ্গেল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট,
৩) সংরক্ষিত শ্রেণীর অধীন আর্থিক সাহায্য পেতে হলে SC, ST এর সার্টিফিকেট থাকতে হবে,
৪) ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আধার লিংক করা থাকতে হবে,
৫) বিধবা ভাতা ছাড়া রাজ্য সরকারের অন্য কোনো প্রকল্পের অধীন টাকা পেলে এই প্রকল্পে আবেদনের যোগ্য হবেন না।

লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পের টাকা পেয়েছেন? এই মাসে কবে, কত পাবেন, বাড়িতে বসেই মাত্র 5 মিনিটে জেনে নিন।

এছাড়া আরো কয়েকটি কারণে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কাটা হচ্ছে।
১) প্রকল্পে আবেদনের যোগ্য নন, এমন অনেক উপভোক্তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ভুলবশত টাকা পাঠানো হলে নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্ট থেকে সেই অতিরিক্ত টাকা কেটে নেওয়া হচ্ছে।
২) অনেকেই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ওপেন করার সময় প্রধানমন্ত্রী জীবন জ্যোতি যোজনা বা প্রধানমন্ত্রী জনধন যোজনার মতো প্রকল্পের অধীন পাসবই খুলেছিলেন।

কিন্তু জানেন না সেই প্রকল্পেরই লাইফ ইনস্যুরেন্স হিসেবে বার্ষিক নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা কাটা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে এই টাকাই কেটে নেওয়া হচ্ছে। যদি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকেও এই টাকা কাটা হয় এবং তা বন্ধ করতে চান, তাহলে ব্যাংকের শাখায় গিয়ে সেই প্রকল্প বন্ধ করতে পারবেন।

লক্ষ্মীর ভাণ্ডার গ্রাহকদের চিন্তা বাড়ল, সামান্য ভুলের জন্য টাকা পাওয়া বন্ধ হতে পারে।

উল্লেখ্য, এই প্রকল্পে আবেদনের জন্য আবেদনকারীর বয়স ২৫ বছর থেকে ৬০ বছরের মধ্যে হতে হবে। আর যদি এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে চান, তবে আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্র অবশ্যই জমা করতে হবে। সবথেকে বড়ো বিষয় ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে আধার কার্ড লিংক করা না থাকলে পাওয়া যাবে না প্রকল্পের টাকা। তাই যত শীঘ্র সম্ভব এই কাজটি সেরে ফেলতে ভুলবেন না।
প্রকল্প বা যোজনা সংক্রান্ত খবরের নতুন আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(103) ""