টেক নিউজ

টিভি চ্যানেলের দামে হলো পরিবর্তন, এবার থেকে টিভি দেখার জন্য করতে হবে অতিরিক্ত খরচ

Adv

সমগ্র ভারত তথা পশ্চিমবাংলা জুড়ে এখন প্রত্যেক বাড়িতেই টিভির রমরমা। আর এবারে বিশেষ কিছু সূত্র মারফত জানা গিয়েছে যে, আগামী দিনে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গ তথা ভারতের নাগরিকদের টিভির দেখার খরচ বাড়তে চলেছে। নতুন বছরে তথা ২০২৩ সালে টিভি দেখার জন্য নাগরিকদের অতিরিক্ত খরচ করতে হবে এমনটাই আশঙ্কা করছে ওয়াকিবহাল মহলের কর্তাব্যক্তিরা। এর পাশাপাশি বিভিন্ন সূত্রের তরফে দাবী করা হচ্ছে যে, এব্যাপারে দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা চালানো হচ্ছে ট্রাই-এর তরফে আর আগামী বছরে ট্রাই-এর তরফে এ সংক্রান্ত নয়া নির্দেশিকা আনা হতে চলেছে। তবে মূল্যবৃদ্ধির বাজারে অন্যান্য জিনিসের পাশাপাশি টিভির চ্যানেলের দামও বাড়ানো হলে যথেষ্ট সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে সাধারণ মানুষকে, আর তাই ট্রাই-এর এই নতুন নিয়মের কারণে সাধারণ জনগণের মধ্যে বারংবার নানা ধরনের বিতর্কের সৃষ্টি হচ্ছে।

ইতিপূর্বে প্রায় ৪ বছর আগে ট্রাই-এর তরফে ডিটিএইচ-এর ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনার জন্য নতুন মাশুল নীতি কার্যকরী করা হয়েছিলো। পরবর্তীতে ২০২০ সালে পুনরায় সেই নীতিতে বদল আনা হয়েছিলো। তবে ২০২০ সালে মাশুল নীতিতে যে পরিবর্তন আনা হয়েছিল তার দাম নির্ধারণের পদ্ধতিকে কেন্দ্র করে সমস্ত চ্যানেল সংস্থার কর্তাব্যক্তিরা আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তবে এবারে যে নতুন মাশুল নীতি কার্যকরী করা হবে তা নিয়ে সমস্ত সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে সব পক্ষের সাথে আলাপ আলোচনা করে তবেই এই নতুন মাশুল নীতি কার্যকরী করতে উদ্যোগী হয়েছে ট্রাই-এর কর্তৃপক্ষ। তবে এ বিষয়েও বিবাদের অন্ত নেই। আর তাই গ্রাহকদের মধ্যে আশঙ্কা বাড়ছে যে, পরবর্তীতে টিভি দেখার ক্ষেত্রে তাদের অতিরিক্ত খরচ দিতে হবে অর্থাৎ আগামীদিনে পুনরায় চ্যানেলগুলির দাম বাড়তে চলেছে। বিগত মঙ্গলবার ট্রাই এর তরফে জানানো হয়েছে যে, আগামী দিনে টিভির ক্ষেত্রে যেসমস্ত পে চ্যানেলের বোকে কিংবা প্যাকেজ থাকবে সেই সমস্ত চ্যানেলের জন্য প্রত্যেক মাসে ১৯ টাকা করে খরচ করতে হবে।

Ad

বর্তমানে গ্রাহকদের একটি পে চ্যানেলের জন্য সর্বোচ্চ ১২ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হয়। তবে ট্রাই-এর কার্যকরী এই নতুন মাশুল নীতির কারণে আগামী দিনে গ্রাহকদের সর্বোচ্চ ১৯ টাকা খরচ করতে হবে একটি পে চ্যানেলের জন্য। তবে ট্রাই-এর তরফে এও জানানো হয়েছে যে, আগামী দিনে বোকে কিংবা প্যাকেজের ক্ষেত্রে ছাড়ের পরিমাণও বাড়বে। বর্তমানে যেখানে একটি প্যাকেজে একটি চ্যানেলের জন্য সর্বোচ্চ ১২ টাকা খরচ করতে হয় সেখানে ছাড়ের পরিমাণ রয়েছে ঠিক ৩৩ শতাংশ তবে আগামী দিনে একটি চ্যানেলের সর্বোচ্চ দাম ১৯ টাকা হলে ছাড়ও ৪৫ শতাংশে গিয়ে দাঁড়াবে। এছাড়াও ট্রাই-এর তরফে বিভিন্ন চ্যানেল সংস্থাগুলিকে জানানো হয়েছে যে, যে সকল পে চ্যানেলগুলি তারা কোনোরকম বোকে কিংবা প্যাকেজ না রেখে স্বাধীনভাবে বিক্রি করতে চান সেগুলির দাম তারা নিজের মতো নির্ধারণ করতে পারবেন। এমনকী এক্ষেত্রে এই সকল চ্যানেলগুলির দামের কোনো উর্ধ্বসীমাও বেঁধে দেওয়া হয়নি ট্রায়ের তরফে। আগত ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে বিভিন্ন চ্যানেল সংস্থাগুলিকে চ্যানেলের প্যাকেজগুলির নতুন দাম স্থির করে জানানো নির্দেশ দিয়েছে ট্রাই-এর কর্তৃপক্ষ।

ভোটার সংক্রান্ত নয়া নিয়ম প্রকাশ করলো ইলেকশন কমিশন, বাড়তি সুবিধা পেতে চলেছেন সমস্ত নাগরিকরা।

এই চ্যানেল সংস্থাগুলির দামের ওপর নির্ভর করেই আগামী বছরের অর্থাৎ ২০২৩ সালের ১লা জানুয়ারির মধ্যে মাল্টি সার্ভিস অপারেটর (এমএসও), ডিটিএইচ সংস্থা এবং স্থানীয় কেবল অপারেটরদের বিভিন্ন প্যাকেজগুলির দাম জানাবে ট্রাই। আর পরবর্তীতে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে গ্রাহকদের জন্য এই নতুন দামে নতুন প্যাকেজ কার্যকরী করবে ট্রাই কর্তৃপক্ষ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, চ্যানেলের মূল্যবৃদ্ধির আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে ট্রাই কর্তাদের তরফে জানানো হয়েছে যে, চ্যানেলের সর্বোচ্চ দাম ১২ টাকা থাকলেও গ্রাহকরা অনেকক্ষেত্রে তাদের পছন্দের চ্যানেলগুলি দেখতে পান না যার জন্য তাদের অধিক দাম দিয়ে সেসমস্ত চ্যানেলগুলি দেখতে হয়। তবে এক্ষেত্রে চ্যানেলের দাম বাড়ানো হলে পে চ্যানেলগুলিও সস্তা হবে। এর পাশাপাশি ট্রাই এর তরফে এও জানানো হয়েছে যে, ২০২০ সালের মাশুল সংশোধনী হিসেবে তাদের যে প্রস্তাব দিয়েছিলো এই নতুন মাশুল সংশোধনী নীতিতে সেগুলি কার্যকর করার চেষ্টা করা হয়েছে ট্রাই-এর তরফে। নতুন মাশুল সংশোধনী নীতি কার্যকর হলে আখেরে গ্রাহকদেরই মঙ্গল হবে এমনটাই দাবি করেছে ট্রাই-এর কর্তৃপক্ষ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(105) ""