পশ্চিমবঙ্গের খবর

Air Conditioner – AC ছাড়াই ঘর ঠাণ্ডা রাখার 7 টি উপায় আর কষ্ট পেতে হবে না, জেনে নিন।

Adv

সাধারণের চেয়ে কয়েকগুন বেড়েছে তাপমাত্রা। এখন শহরে মোটামুটি সকলেই Air Conditioner ব্যবহার করছেন। বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে ঘরের তাপমাত্রার পার্থক্য হওয়ায় আরও সমস্যা। ঠান্ডা থেকে গরমে বাইরে বেরোলেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেকেই। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে, ছোটো বাচ্চাদের অকারণে বাইরে না বের করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু অফিসযাত্রী বা নিত্যদিনের কাজের টানে তো বেরোতেই হবে সাধারণ মানুষকে। ঘরের ভেতরও একদন্ড পাখা ছাড়া বসে থাকার জো নেই। আবার সারাক্ষন Air Conditioner চালিয়েও বসে থাকা যায় না। তাতে বাড়বে বিদ্যুতের বিল। তাছাড়া সারাদিন এসি চালিয়ে রাখলে সন্তানের ঠান্ডা লাগার সম্ভাবনা ক্রমশ বেড়ে যায়। এর অন্যতম কারণ বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে ঘরের তাপমাত্রার পার্থক্য।

তাহলে Air Conditioner ছাড়া কিভাবে ঘর ঠান্ডা রাখা যাবে? এই প্রশ্নই থাকে সকলের মনে। উল্লেখ্য, বর্তমানে সকলের বাড়িতে Air Conditioner এর ব্যবস্থা নেই। তারাও এই উপায়গুলি দেখে এসি ছাড়াই ঘর ঠান্ডা রাখতে পারেন। তার জন্য অবশ্য বেশি পরিশ্রম করতে হবে না। সাধারণ কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখলেই হবে।
১) সূর্যের অধিক তাপমাত্রা আটকাতে ব্যবহার করা যাবে সুতির বা লিনেনের মতো প্রাকৃতিক ফ্যাব্রিকের পর্দা এবং বেড শিট। তবে দেখতে হবে তা তা যেন হালকা রঙের হয়। এতে করে ঘর এসি ছাড়াই অনেক ঠান্ডা থাকবে।

Ad

Air Conditioner ছাড়া স্ট্যান্ড ফ্যানের মাধ্যমে কিভাবে ঘর ঠান্ডা রাখবেন?

২) আগেকার দিনে প্রায় প্রত্যেক বাড়ির জানলায় খসখস ঝোলানো হত। বর্তমানে এর চল প্রায় নেই বললেই চলে। তাই এটি জোগাড় করা একটু কঠিন। তবে চিন্তা করবেন না, এর বদলে ব্যবহার করা যাবে মোটা চাদর। এই চাদর জলে ভিজিয়ে, তারপর অল্প শুকিয়ে নিয়ে অর্থাৎ অল্প ভিজে অবস্থায় পর্দার উপর ঝুলিয়ে দিতে হবে।

অবশেষে বৃষ্টিতে ভিজতে চলেছে বাংলা, বৃষ্টি কবে হবে, আজকের আবহাওয়া কেমন থাকবে, জেনে নিন।

৩) সকাল ১১টে থেকে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না বেরোনোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কারণ এই সময়টা তাপমাত্রা অধিক থাকে। তাই সকাল ১১ টা বাজলেই জানলা বন্ধ করে দিতে হবে। আর সঙ্গে পর্দা জানলার পর্দা টেনে দিতে হবে, তাতে করে ঘর অন্ধকার হবে এবং ঘরের তাপমাত্রাও কমবে। সন্ধ্যের পরে ঘরের সব জানলা খুলে দিতে হবে। এতে ঘরের দমবন্ধ পরিস্থিতি কমবে। বাইরের প্রাকৃতিক হাওয়া ঘরে ঢুকবে।

৪) দুপুরের পর বেশি গরম অনুভব হয়। সেক্ষেত্রে স্টিলের ব্লেডওয়ালা স্ট্যান্ডিং ফ্যান চালানো যাবে। ঘরে যদি বড় জানালা থাকে, তার ধার ঘেঁষে রেখে একটু বেঁকিয়ে চালিয়ে দিতে পারেন। তা না থাকলে টেবিল ফ্যানও চালানো যাবে। এতে করে ঘরের বদ্ধভাব কমবে।
৫) ঘরে গরম তাপমাত্রা বের করার জন্য মুখোমুখি দুটো জানলা থাকলে ভাল হবে। না হলে টেবিল বা স্ট্যান্ড ফ্যানের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টির পূর্বাভাস সমগ্র রাজ্যে, ঠিক কি জানালো আবহাওয়া দফতর দেখুন।

৬) ঘরের মধ্যে ছোটোখাটো গাছ রাখলে দেখতেও সুন্দর লাগে। আবার তাপমাত্রাও ঠিক থাকে। তবে যে সে গাছ নয়, মানিপ্লান্ট, অ্যালোভেরা, স্নেক প্লান্ট, অ্যারিকা পামের মতো গাছ ঘরে রাখা যাবে। তাহলে ঘর অনেক ঠান্ডা থাকবে।
৭) রান্নাঘর বা বাথরুমে এগজস্ট ফ্যান লাগানো যাবে। তাতে ঘরের বদ্ধ গরম হাওয়া বেরিয়ে যাবে।
এই সংক্রান্ত খবরের নতুন আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(109) ""