অর্থনীতি

বেসরকারি হতে চলেছে ভারতের এই বিশেষ ব্যাংক, এই ব্যাঙ্কে আপনার অ্যাকাউন্ট নেই তো?

Adv

ভারতজুড়ে ক্রমান্বয়ে যে অর্থনৈতিক মন্দা বৃদ্ধি পাচ্ছে তার ফলে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার তরফে বহু ব্যাংকের পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, যার ফলে বারংবার সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে ক্রেতাদের। অন্যদিকে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে দেশের বিভিন্ন সুপরিচিত ব্যাংকগুলিকে বেসরকারি হিসেবে ঘোষণা করা হচ্ছে। ইতিপূর্বে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে বিভিন্ন সুপরিচিত ব্যাংকগুলিকে বেসরকারি হিসেবে ঘোষিত করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জানা গিয়েছিলো যে, ভবিষ্যতে আইডিবিআই ব্যাংককেরও বেসরকারিকরণ করা হবে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে। আর এবারে আইডিবিআই ব্যাংককে বেসরকারি হিসেবে ঘোষণা করার দিকে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিলো ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। বিভিন্ন সমীক্ষায় প্রকাশিত তথ্য অনুসারে জানা গিয়েছে যে, আইডিবিআই ব্যাংকের ক্ষেত্রে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এবং দেশের অন্যতম জনপ্রিয় বীমা সংস্থা এলআইসি-এর মিলিতভাবে যে ৬০.৭২ শতাংশ শেয়ার রয়েছে তা বিক্রি করতে উদ্যোগী হয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

এক্ষেত্রে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের ৩০.৪৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে এবং এলআইসির শেয়ার রয়েছে ৩০.৩৪ শতাংশ। দীর্ঘদিন ধরেই এবিষয়ে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিলো। ডিপার্টমেন্ট অফ ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড পাবলিক অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট-এর তরফে বিগত অক্টোবর মাসের ৭ তারিখ থেকে যেসমস্ত আগ্রহী ব্যক্তি অথবা প্রতিষ্ঠান এই শেয়ার কিনতে আগ্রহী তাদের এক্সপ্রেশন অফ ইন্টারেস্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে শুরু হয়েছে। ৭ই অক্টোবর থেকেই এক্সপ্রেশন অফ ইন্টারেস্ট জমা দেওয়ার সময়সীমা শুরু হয়েছে এবং আগামী ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে সেই সময়সীমার শেষও হতে চলেছে। এছাড়াও কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সমগ্র ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে জানানো হয়েছে যে, এই এক্সপ্রেশন অফ ইন্টারেস্ট ১৮০ দিন পর্যন্ত বৈধ থাকবে, এমনকী তা আরও ১৮০ দিন পর্যন্ত বাড়ানো যেতে পারে।

Ad

DIPAM-এর তরফ এই বিষয়ক একটি ট্যুইটে জানানো হয়েছে যে, কেন্দ্রীয় সরকার এবং এলআইসি তরফে আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ারগুলি হস্তান্তর করার পাশাপাশি কন্ট্রোল অফ ম্যানেজমেন্টও হস্তান্তর করা হবে। এর পাশাপাশি এই ট্যুইটে DIPAM এর তরফে আরও জানানো হয়েছে যে, আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে কোনো বড়ো প্রতিষ্ঠান কিংবা ব্যক্তির আবেদন গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে না। যেকোনো বেসরকারি কিংবা বিদেশি ব্যাংক, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার অধীনে নাম নথিভুক্ত নেই এরূপ ব্যাঙ্ক অথবা আর্থিক সংস্থা, শেয়ার বাজার নিয়ন্ত্রক যেসমস্ত বিকল্প লগ্নি সংস্থাগুলি রয়েছে সেগুলি, বিদেশে নথিবদ্ধ লগ্নি সংস্থাগুলিকেই কেবলমাত্র যোগ্য ক্রেতা হিসেবে বিবেচনা করা হবে। তবে এক্ষেত্রে ক্রেতাদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে DIPAM-এর তরফে জানানো হয়েছে যে, গ্রাহকরা এককভাবে অথবা চারটি সংস্থা একত্রে গোষ্ঠী হিসেবে এই শেয়ারগুলি কিনে নেওয়ার জন্য আবেদন জানাতে পারবেন। জানা গিয়েছে যে, বিগত অর্থবর্ষের বাজেট অধিবেশনেই আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ার বিক্রির ক্ষেত্রে সবুজ সংকেত দেওয়া হয়েছিলো কেন্দ্রীয় সরকার তরফে। এই ব্যাংকের শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে ক্রেতাদের কোন কোন যোগ্যতা থাকতে হবে তাও নির্ধারণ করা হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে।

ভোটার সংক্রান্ত নয়া নিয়ম প্রকাশ করলো ইলেকশন কমিশন, বাড়তি সুবিধা পেতে চলেছেন সমস্ত নাগরিকরা।

DIPAM এর তরফে সমস্ত ক্রেতাদের জানানো হয়েছে যে, আইডিবিআই ব্যাংকের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের এলআইসির মিলিত শেয়ার কিনে নেওয়ার ক্ষেত্রে একজন ক্রেতার সম্পদ অন্তত পক্ষে ২২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা হতে হবে। এর পাশাপাশি বিগত পাঁচ বছরের মধ্যে অন্ততপক্ষে তিন বছর আগ্রহী সংস্থার মুনাফা থাকা প্রয়োজন। এছাড়াও এই শেয়ারগুলি বিক্রি করার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে শর্ত রাখা হয়েছে যে, শেয়ার অধিগ্রহণের দিন থেকে অন্ততপক্ষে পাঁচ বছর বাধ্যতামূলকভাবে শেয়ার হাতে রাখা হবে। আগ্রহী ক্রেতাদের এই সমস্ত শর্ত মেনেই এক্সপ্রেশন অফ ইন্টারেস্ট জমা দিতে হবে। আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ার বিক্রি করার জন্য কেপিএমজি ইন্ডিয়া ও লিঙ্ক লিগাল সংস্থা দুটিকে নিযুক্ত করা হয়েছে, যাতে ব্যাংকের শেয়ার বিক্রির ক্ষেত্রে যথাযথ পরামর্শ পাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয়েছে যে, আইডিবিআই ব্যাংকের শেয়ার শেষ পর্যন্ত কোন ক্রেতার ভাগ্যে জুটবে অথবা এক্ষেত্রে যোগ্য ক্রেতা হিসেবে কে বা কারা বিবেচিত হবেন তা নির্ধারণ করবে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া। যদিও যোগ্য ক্রেতা হিসেবে কে বা কারা বিবেচিত হবেন তা দেখতে উৎসুক হয়ে রয়েছেন সমগ্র দেশের ব্যবসায়ী তথা ভারতীয় নাগরিকরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(110) ""