প্রকল্প

শিল্পের সমাধান প্রকল্প – স্বাধীনতা দিবসে বাংলার কৃষকদের লাখ টাকা দিচ্ছে সরকার। সময় থাকতে আবেদন করুন।

Adv

সম্প্রতি রাজ্য সরকারের তরফে রাজ্যের কৃষক সম্প্রদায়ের মানুষদের জন্য শিল্পের সমাধান নামে এক দুর্দান্ত প্রকল্প আয়োজন করা হয়েছে যা সকল চাষীদের (Farmers) মুখে হাসি ফুটিয়ে তুলবে। কৃষি ব্যবস্থাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য এবং আমাদের রাজ্যকে অর্থনৈতিক দিক থেকে আরও মজবুত করার জন্য মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (WB CM Mamata Banerjee) এক বিশেষ প্রকল্প আয়োজন করেছেন, এই প্রকল্পের নাম হল ‘কৃষি পরিকাঠামো তহবিল’।

শিল্পের সমাধান প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা।

এই প্রকল্পের আওতায় যে সমস্ত চাষী (WB Farmers) নিজেদের নাম নথিভুক্ত করবেন তাদেরকে কৃষি ক্ষেত্রে সহায়তার জন্য সরকারের পক্ষ শিল্পের সমাধান প্রকল্পের (Shilper Samadhan Scheme) থেকে ২ কোটি টাকা বা তার অধিক একটি নির্দিষ্ট মূল্য পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হবে। আর এখানে সুদের হার রাখা হয়েছে মাত্র ৩ শতাংশ। যার ফলে যে কোন দরিদ্র চাষী হোক কিংবা ভাগ চাষী সকলেই এই প্রকল্পের মাধ্যমে সুবিধা লাভ করতে পারবেন।

ভারত কৃষি প্রধান দেশ। দরিদ্র চাষীরা রোদে পুড়ে জলে ভিজে মাঠে সোনার ফসল ফলান। সেই ফসল একদিকে যেমন আমাদের দেশের মানুষের জীবন ধারণের প্রধান উৎস তেমনি অন্যদিকে এই ফসল আমাদের দেশের অর্থনৈতিক ভিত তৈরি করার ক্ষেত্রেও প্রধান ভূমিকা পালন করে। তাই আমাদের দেশ এবং রাজ্য সরকার (Government Of West Bengal) উভয়েই দেশের কৃষি ব্যবস্থাকে আরও উন্নত করে তোলার উদ্দেশ্যে একাধিক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে চালু হওয়া এই শিল্পের সমাধান প্রকল্পটিও এরকমই একটি কল্যাণকর কর্মসূচির উদাহরণ। আর এই প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের সকল অন্নদাতার সুবিধা হতে চলেছে বলে মনে করছেন অনেকে। তাহলে এবার এই প্রকল্পের আবেদন পদ্ধতি, যোগ্যতা ও অন্যান্য বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক।

শিল্পের সমাধান প্রকল্পের উদ্দেশ্য সম্পর্কে দেখুন।

  • ‘শিল্পের সমাধানে’ ক্যাম্পে আগত কৃষকদের মধ্যে কৃষি পরিকাঠামো তহবিল প্রকল্পের প্রচার।
  • ইচ্ছুক আবেদনকারী প্রার্থীদের এই প্রকল্পের আওতায় নাম নথিভুক্ত করণ।
  • কৃষি পরিকাঠামো তহবিল প্রকল্পে বর্তমান আবেদনকারীদের প্রয়োজনীয় নথিপত্র বা অন্যান্য সমস্যার সমাধান করা।

শিল্পের সমাধান প্রকল্পের সুবিধা

  1. চাষের জন্য ২ কোটি পর্যন্ত মূল্যের ঋণ প্রদান।
  2. ঋণ পরিশোধ করার সর্বাধিক সময়সীমা হল ৭ বছর এবং সুদের হার ৩ শতাংশ।
  3. ২ কোটি টাকার অধিক মূল্যের ঋণের ক্ষেত্রে এই সুবিধা সর্বাধিক ২ কোটি টাকা পর্যন্ত পাওয়া যাবে।
  4. ২ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে কোনোরকম কো ল্যাটেরাল সিকিউরিটি দরকার নেই।
  5. কোনো প্রকল্পে সরকারি অনুদান আবেদনকারীর বিনিয়োগ হিসেবে ধার্য করা হবে , তবে আবেদনকারীকে প্রকল্প মূল্যের অন্তত ১০ শতাংশ মার্জিন মানি বিনিয়োগ করতে হবে।
Gold Price Today (আজকে সোনার দাম)

কারা এই শিল্পের সমাধান প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন? বিভিন্ন সমবায় সমিতি, স্বনির্ভর গোষ্ঠী, কৃষক উৎপাদন সংস্থা, যৌথ দায়বদ্ধ গোষ্ঠী, কৃষি উদ্যোক্তা ও নবীন উদ্যোক্তা ইত্যাদি মানুষেরা বা কোন কৃষক সংগঠন বা কৃষকেরা এই প্রকল্পের সুবিধা লাভ করার জন্য এখানে আবেদন করতে পারবেন রাজ্য সরকারের কাছে। কিন্তু সঠিক আবেদন পদ্ধতি সম্পর্কে আপনারা জেনে নিন।

Fixed Deposit – ফিক্সড ডিপোজিট গ্রাহকদের জন্য সুখবর, এক ধাক্কায় সুদ বাড়াল ব্যাংক।

এই প্রকল্পের আওতায় সুবিধা লাভের জন্য যেসকল যোগ্য প্রার্থী আবেদন করতে ইচ্ছুক, তাদের www.matirkotha.wb.gov.in (মাটির কথা) ওয়েবসাইটে গিয়ে আবেদনপত্র জমা দিতে হবে। তার সঙ্গে প্রয়োজনীয় সকল নথিপত্র স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। এ সম্পর্কে আরো বিস্তারিতভাবে জানতে ব্লক, জেলা পরিষদ, রাজ্য কৃষি দফতর বা সংশ্লিষ্ট দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

Zero Balance Savings Account – স্বাধীনতা দিবসে বিনামূল্যে জিরো ব্যালান্স সেভিংস একাউন্ট

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

string(99) ""